শুক্রবার , ১৯ আগস্ট ২০২২ | ২২শে মাঘ, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন-আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. ক্যারিয়ার
  5. খেলাধুলা
  6. জাতীয়
  7. তরুণ উদ্যোক্তা
  8. ধর্ম
  9. নারী ও শিশু
  10. প্রবাস সংবাদ
  11. প্রযুক্তি
  12. প্রেস বিজ্ঞপ্তি
  13. বহি বিশ্ব
  14. বাংলাদেশ
  15. বিনোদন

উদ্যোক্তা বিষয়ক সাক্ষাৎকার পর্ব-৩

প্রতিবেদক
bdnewstimes
আগস্ট ১৯, ২০২২ ১১:৩১ অপরাহ্ণ

আজকের পর্বে আমরা জানবো কক্সবাজারের একজন সফল নারী উদ্যোক্তা জুবাইরা কবির চৌধুরী সম্পর্কে। তার সাক্ষাৎকারটি সরাসরি নিচে তুলে ধরা হলোঃ
সাক্ষাৎকার গ্রহণে ছিলেন জয়নাল আবেদিন।

প্রশ্নঃ প্রথমে আপনি এবং আপনার প্রতিষ্ঠান সম্পর্কে কিছু বলুন?
উত্তরঃ আমি জুবাইয়া কবির চৌধুরী। আমার প্রতিস্টানের নাম Lawyer’s Bake। এখন ট্রেডলাইসেন্স করা হয়নি। নভেম্বর, ২০১৯ সালে আমার উদ্যোগ শুরু করি। মুলত কাস্টমাইজড এবং থিম কেক, হোম মেইড বেকারি আইটেম আমার পন্য।

গ্রামের বাড়ি কক্সবাজার জেলার উখিয়া থানার অন্তর্গত রত্নাপালং গ্রামে। গ্রামের প্রাইমারী ও হাইস্কুলে পড়াশোনা। এস.এস.সি পাশ করি বিজ্ঞান বিভাগ নিয়ে, পরেই কক্সবাজার সরকারি মহিলা কলেজে বিজ্ঞান বিভাগে এইচ. এস. সি পাশ করি। চট্টগ্রামের আন্তর্জাতিক ইসলামি বিশ্ববিদ্যালয় এ ফাইন্যান্স ও ব্যাংকিং নিয়ে অনার্স ও মাস্টার্স শেষ করি সফলভাবে। মাস্টার্স এ এত বেশি পরিশ্রম করেছি আলহামদুলিল্লাহ ৩.৯৭ সিজিপিএ নিয়ে ভাইস চ্যান্সেলর গোল্ড মেডেল পাই। সেই দিনটি আমার শিক্ষা জীবনের সবচেয়ে স্মরণীয় দিন। আমার ২ মেয়ে। বড় মেয়ে জুমাইমা আমায়রা রেজা, ছোট মেয়ে আরশিয়া জুমানা রেজা। মেয়েদের বাবা একজন সফল ও দক্ষ আইনজীবী সৈয়দ মো: রেজাউর রহমান রেজা, স্পেশাল পিপি, নারী শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইবুনাল -২,কক্সবাজার । সম্প্রতি আমি নিজেও এল.এল.বি. অনার্স সম্পন্ন করেছি। একজন গৃহিণী হয়ে নিজেকে পরিচিত করছি হোম বেইকার হিসেবে।
খুব ছোট্ট একটা উদ্যোগ নিয়ে ২০১৯ এর শেষে শুরু করেছিলাম Lawyer’s Bake।

ইনোভেটিভ কোন আইডিয়া নিয়ে ব্যবসায়ী হওয়ার মনোভাব থেকেই ২০১৯ এ Lawyer’s Bake এর মাধ্যমে কাস্টমাইজড থিম কেক নিয়ে কাজ শুরু করি। কেক এর বিজনেস নতুন না হলেও প্রতিটা কেকই নতুন ভাবে করা লাগে আর কাস্টমাইজড ডিজাইন ক্রিয়েট করাটাই একটা ইনোভেশন বলতে গেলে।

IMG 20220820 163535

জুবাইরা চৌধুরী তৈরিকৃত কেক।

প্রশ্নঃ আমাদের দেশের বেশীরভাগ শিক্ষার্থীরা পড়ালেখা শেষে চাকরি খুঁজতে ব্যস্ত থাকে সেক্ষেত্রে আপনি ভিন্ন হলেন কেন?

উত্তরঃ গ্রাজুয়েশন এবং পোস্ট গ্রাজুয়েশন এর ফলাফল এর মান অনুযায়ী চাকরি খুজতে হলে সবার আগে দরকার অভিজ্ঞতা। দেশের বেশিরভাগ শিক্ষার্থীদের মত পড়ালেখা শেষ করার সাথে সাথে আমিও চাকরির খোজার পেছনে সময় দিয়েছি অনেক। কিন্তু ওয়ার্ক এক্সপেরিয়েন্স না থাকার কারণে এপ্লাই করার সব সুযোগ হারাচ্ছিলাম। শেষমেষ নিজের প্যাশনটা কেই পেশা হিসেবে দাড় করানোর সিদ্ধান্ত নিলাম। চাকরির পেছনে না ছুটে উদ্যোক্তা হওয়ার স্বপ্নটাকে বাস্তবায়ন করলাম।

প্রশ্নঃ শুরুটা কেমন? মূলধন কি রকম এবং কতজন পেশাদার নিয়ে শুরু হয়েছিলো?

উত্তরঃ বড় মেয়ের সেকেন্ড জন্মদিন এ ডেজার্ট টেবিল সাজানোর ইচ্ছে হয় ২০১৯ এর ফেব্রুয়ারিতে , করিও….কিন্তু ঐ যে প্র্যাক্টিস ছিল না তার জন্য, বিয়ের অনেক আগে বাটার ক্রিম কেক ডেকোরেশন করেছিলাম… কেক ভাল হলেও ক্রিম এ চিনির কচকচানি থাকত, কিন্তু তারপর ও বেকিং করে যেতাম। নিজের প্রোফাইল এ বার্থডের ডেজার্ট টেবিল এর ছবি দেখে সবাই অনেক ইন্সাপায়ার করেছে, কেউ কেউ বলল অর্ডার নিব কি না…আমি ত লজ্জা আর ভয়ে পিছিয়ে গেলাম…সেবছর আগস্টে এ সার্টিফিকেট তুলতে ভার্সিটির ভিসি স্যারের সাথে দেখা করতে যাই, স্যার জানতে চাইলেন কোন পেশায় এ আছি… আমি বললাম হোম মেকার আর আমার ফ্রেন্ড বলল টিচার। তখনই মাথায় স্ট্রাইক করল আমার পরিচয় টা আমার জন্য যথেষ্ট না…সিদ্ধান্ত নিই বেকিং যেহেতু আমার প্যাশন তাই বেকিং পেশা ই আমার জন্য সুইটেবল। প্রফেশনাল কাজ করতে হলে অবশ্যই ট্রেনিং বা কোর্স না করলেই নয়। ২০১৯ এর অক্টোবর-নভেম্বর এ কেক ওয়ার্কশপ করার পর সাহস করে পেইজ ওপেন করি। আস্তে আস্তে সামনে এগিয়ে চলা।

বেকিং -কুকিং এর অনেক যন্ত্রপাতি বলতে গেলে আগে থেকেই আমার কালেকশন এ ছিল। তাই ঐভাবে মুলধন হিসেব করে শুরু করা হয়নি। এক্সপেরিমেন্ট এর জন্য অনলাইন থেকে বেকিং সামগ্রী পারচেজ করা থেকেই শুরু হয় আমার মুলধন দেয়া, সাথে কোর্স- ওয়ার্কশপ আর স্পট পারচেজ মিলে ৫০,০০০ ব্যয় হয়।

প্রশ্নঃ এই উদ্যোগটিই বা কেন নিলেন?

উত্তরঃ কেক বেকিং এবং ডেকোরেশন এর প্রতি আগ্রহ আমার ছোট বেলা থেকে। এইম ইন লাইফ ছিল ডাক্তার হব, পরিবারের ও স্বপ্ন ছিল তাই। পরীক্ষার খাতায় ও তাই লিখতাম রচনায়। কিন্তু বেকিং টা একটা নেশা, যার ঘোর দিন দিন বাড়তেই থাকে। ডাক্তার না হতে পারাটা আমার জন্য মোটেও হতাশা ব্যঞ্জক হতে পারেনি। ব্যবসায় প্রশাসনের এক্টিভ ছাত্রী ছিলাম, সব প্রজেক্ট প্রেজেন্টেশন এ খাবার,রেস্টুরেন্ট,ক্যান্টিন, উইমেন এক্সেসরিস শপ
কে প্রাধান্য দিতাম। Passion টাকেই তাই Mission হিসেবে দাড় করালাম। মজার মজার, স্বাস্থ্য সম্মত, উন্নতমানের, ব্যতিক্রমধর্মী বেইকড এবং নন বেইকড খাবার নিয়ে আমার পথচলা। আলহামদুলিল্লাহ, এই অল্প সময়ে সবার গ্রহণযোগ্যতা অর্জন করতে পেরেছে।

প্রশ্নঃ গ্রাহক সংগ্রহ হয়ে থাকে কেমন করে?

উত্তরঃ শুরুর দিকে আত্মীয় স্বজন, পরিবার পরিজন, বন্ধু বান্ধব থেকে অর্ডারের লিস্ট টা লম্বা হতে থাকে। ধীরে ধীরে তাদের রেফারেন্স আর রিভিউ এর ভিত্তিতে নতুন নতুন গ্রাহকের অর্ডার পেতে থাকি।
সেই সাথে ফেইসবুক ভিত্তিক বিভিন্ন ছোট বড় গ্রুপ মাধ্যমে সবার কাছে পরিচিত হতে থাকে Lawyer’s Bake।

প্রশ্নঃ বর্তমানে কতজন পেশাদার/কর্মী রয়েছে আপনার প্রতিষ্ঠানে?

উত্তরঃ আমার প্রতিষ্ঠান টি সম্পূর্ণ নিজ তত্ত্বাবধানে চালিয়ে আসছি। গৃহিণী হিসেবে যখন উদ্যোক্তার খাতায় নাম লিখিয়েছি পরিবারের সহায়তা পেয়েছি সর্বক্ষেত্রে। হোম মেইড বেইকড ফুড তাই কোন রকম পেশাদার কর্মী ছাড়াই নিজেই সব অর্ডারের কাজ সামলিয়েছি। অনলাইন পেইজের রিপ্লাই থেকে শুরু করে কাস্টমাইজড অর্ডার প্রিপেয়ার করা, ফটোগ্রাফি, ফুড ডেলিভারি কোম্পানিকে ইনফর্ম করা, ইনভেন্টরি চেক করা, প্রোডাক্ট রিস্টক করা, পোস্ট করা সব একা হাতে করেছি।

প্রশ্নঃ প্রতিষ্ঠান ব্যবস্থাপনার জন্য আলাদা কোন ব্যবস্থাপনা টিম/বিভাগ কি রয়েছে?

উত্তরঃ প্রতিষ্ঠান ব্যবস্থাপনার জন্য আলাদা কোন ব্যবস্থাপনা টিম/বিভাগ নেই।

প্রশ্নঃ আপনার প্রতিষ্ঠানের অর্জন?

উত্তরঃ কক্সবাজারের সর্ববৃহত উদ্যোক্তা উন্নয়ন ভিত্তিক সংগঠন কক্সবাজার ইয়ুথ এন্টারপ্রিনিয়ারস ক্লাব(সিওয়াইইসি) CYEC Best Women Entrepreneur Award, Best Performance Award (Professional Cake workshop by IBR- ctg based), winner : Online Professional Wedding Cake Artistry, IBR Cake Master Award 2022- 5th position. পুরুস্কার গুলোতে সম্মানিত করা হয়।

প্রশ্নঃ আপনার প্রতিষ্ঠানের ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা এবং নতুন কোন পদক্ষেপ বা উদ্যোগ কি ব্যাক্তিগত এবং প্রাতিষ্ঠানিকভাবে আছে?

উত্তরঃ ভবিষ্যৎ পরিকল্পনা হিসেবে ইচ্ছে আছে Lawyer’s Bake এর একটি আউটলেট ওপেন করার সাথে একটি ওয়েল এস্টাব্লিস্ট কিচেন। যার জন্য প্রয়োজন হতে পারে যথোপযুক্ত ফান্ড এর।

প্রশ্নঃ উদ্যোক্তা হতে কি কি প্রয়োজন?

উত্তরঃ আমার মতে প্রথমেই দরকার ইচ্ছাশক্তি, মনোবল আর অদম্য সাহসের। শুরুতে উদ্যোক্তা জীবনটা অনেকটা স্রোতের বিপরীতে চলার মত। বুদ্ধি, নতুনত্ব আর ইনোভেশনকে কাজে লাগিয়ে চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবেলা করে বিজনেসকে সামনে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারলে সফলতা অনিবার্য।

পেজে লিংকঃ https://www.facebook.com/lawyersbake/

সর্বশেষ - খেলাধুলা