বুধবার , ২৪ এপ্রিল ২০২৪ | ৫ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন-আদালত
  3. ক্যারিয়ার
  4. খেলাধুলা
  5. জাতীয়
  6. তরুণ উদ্যোক্তা
  7. ধর্ম
  8. নারী ও শিশু
  9. প্রবাস সংবাদ
  10. প্রযুক্তি
  11. প্রেস বিজ্ঞপ্তি
  12. বহি বিশ্ব
  13. বাংলাদেশ
  14. বিনোদন
  15. মতামত

কোন ফল কখন খাবেন?

প্রতিবেদক
bdnewstimes
এপ্রিল ২৪, ২০২৪ ২:৫৭ অপরাহ্ণ


আইরিন ইসলাম

১. ফল কখন খাওয়া উচিত- খালিপেটে না ভরাপেটে?

২. রাতে ঘুমানোর আগে ফল খেলে কী হজমে সমস্যা হয়?

৩. দিনে কয়টি ফল খেতে হয়?

ফল খেতে গেলে এমন অনেক প্রশ্নই মনে আসতে পারে। ফল কখন খাবেন এ নিয়ে নানা জনের নানা মত। কেউ বলছেন, খালি পেটে পানি আর ভরা পেটে ফল খেতে হয়। আবার কেউ বলেন, সন্ধ্যার আগে ফল খেয়ে নেওয়া উচিত। ফল খাওয়ার উপযুক্ত সময় নিয়ে একেকজনের ধারণা একেকরকম। আবার কোন ধরনের ফল ভরাপেটে খেতে হবে, আর কোনগুলো যেকোন সময়ই খাওয়া যাবে- এ নিয়ে থাকে বিভ্রান্তি। গবেষণা বলছে, মানে যতই ভাল হোক না কেন, ফলের পুষ্টিগুণ বজায় রাখতে গেলে এবং ফল খেতে হবে দিনের নির্দিষ্ট সময়ে। তবেই ফলে থাকা ভিটামিন, প্রোটিন এবং খনিজ শরীরের উপকারে আসবে। আসুন জেনে নেই, ফল খাওয়ার উপযুক্ত সময় সম্পর্কে—

ফল খাওয়ার উপযুক্ত সময়

সকাল বেলা খালি পেটে স্বাস্থ্যের জন্য সব চাইতে উপকারী যে কাজটি করতে পারেন তা হল একটি ফল খাওয়া। যেহেতু পেট খালি, তাই এই অভ্যাস ফলটির পুষ্টি শরীরে গ্রহণে সহায়তা করবে। এছাড়া ফলটি হজম করতে পাকস্থলিও তেমন বেগ পেতে হয় না।

তবে যাদের পাকস্থলিতে আলসার কিংবা বুক জ্বালাপোড়ার সমস্যা আছে তাদের সকালে খালি পেটে ফল খাওয়া উচিত নয়। আবার শিশু, বৃদ্ধ বা যাদের পাকস্থলি দুর্বল তাদের এই অভ্যাস এড়াতে হবে। কারণ কমলাজাতীয় ফল, আনারস, আঙুর ইত্যাদিতে থাকে অ্যাসিডিক অ্যাসিড, যা গ্যাস্ট্রিক অ্যাসিডের উৎপাদন বাড়ায় এবং আলসার ও বুক জ্বালাপোড়ার সমস্যা বাড়তে পারে।

দুই বেলা খাওয়ার মাঝে ফল খাওয়া

স্ন্যাকস বা নাস্তা হিসেবে ফল খাওয়া বিপাকক্রিয়াকে ত্বরান্বিত করে। তাই যে কোনও দুই বেলার খাওয়ার মাঝে ফল খাওয়া খুবই ভালো। তাছাড়া ফল নিয়ন্ত্রণ করে রক্তে শর্করার পরিমাণ। আর স্বাস্থ্যকর স্ন্যাকস খেলে শরীরে যেমন চর্বি জমবে না তেমনি ক্ষুধাবোধও কম হবে।

ফল খাওয়ার ভুল সময়

খাওয়ার পর ফল খাওয়া কখনও উচিত নয়। ধারণা রয়েছে- খাওয়ার পর ফল খাওয়া হজমে এবং ক্যালরি ভাঙতে সাহায্য করে, যা ঠিক নয়। কারণ ফলে রয়েছে নিজস্ব মিষ্টিজাতীয় উপাদান ও ক্যালরি। যা শুধুই ক্যালরির পরিমাণ বাড়ায়।

যে ফল খেতে হবে অল্প

মিষ্টিজাতীয় উপাদান আছে এমন ফল যেমন- বেদানা, আম, আঙুর, লিচু, তরমুজ ইত্যাদি পরিমাণ মতো খেতে হবে। বিশেষ করে যাদের রক্তে শর্করার পরিমাণ বেশি হওয়ার সমস্যা রয়েছে তাদের। এ সমস্যায় আক্রান্তদের জন্য আদর্শ ফলগুলো হলো পেঁপে, আনারস, পাম, রাসবেরি, নাসপাতি, স্ট্রবেরি, পিচ ও আপেল।

ঘুমানোর আগে যে ফল খেতে হবে

ঘুমানোর আগে আপেল, কলা, কিউই, চেরি খেতে পারেন। কারণ এতে থাকে প্রাকৃতিক ‘সেরোটনিন’, ‘মেলাটনিন’ ও ‘ট্রিপ্টোফান’ নামক উপাদান যা শরীর ও মনকে শান্ত করে এবং রাতের ঘুম ভালো হতে সহায়তা করে। আম, আঙুর ইত্যাদি ফল ঘুমানোর আগে এড়িয়ে চলতে হবে। কারণ এগুলো মস্তিষ্ককে সচল রাখে এবং ঘুমে ব্যাঘাত ঘটাতে পারে।

সারাবাংলা/এসবিডিই





Source link

সর্বশেষ - খেলাধুলা