রবিবার , ১১ ফেব্রুয়ারি ২০২৪ | ১০ই ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন-আদালত
  3. আন্তর্জাতিক
  4. ক্যারিয়ার
  5. খেলাধুলা
  6. জাতীয়
  7. তরুণ উদ্যোক্তা
  8. ধর্ম
  9. নারী ও শিশু
  10. প্রবাস সংবাদ
  11. প্রযুক্তি
  12. প্রেস বিজ্ঞপ্তি
  13. বহি বিশ্ব
  14. বাংলাদেশ
  15. বিনোদন

চিকিৎসক তন্বীর উপর হামলাকারীদের সর্বোচ্চ বিচার দাবী স্থানীয়দের

প্রতিবেদক
bdnewstimes
ফেব্রুয়ারি ১১, ২০২৪ ৯:০৮ পূর্বাহ্ণ

শরীয়তপুর প্রতিনিধি:
শরীয়তপুরের ডামুড্যা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সহকারী সার্জন নারী চিকিৎসক নুসরাত তারিন তন্বীর

ও তার পরিবারের উপর হামলাকারীদের সর্বোচ্চ বিচার দাবী করেছেন স্বজন ও স্থানীয়রা।

শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে উপজেলার শিধলকুড়া বাজারে এক মানববন্ধন কর্মসূচিতে এ দাবী জানান তারা। ঘন্টাব্যাপী চলা এ মানববন্ধন কর্মসূচিতে অংশ নেয় ভুক্তভোগীর স্বজন ও স্থানীয়রা।

মানববন্ধনে বক্তারা জানায়, ডামুড্যা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সহকারী সার্জন নুসরাত তারিন তন্বীর সঙ্গে ল্যাবএইড ফার্মাসিউটিক্যালস ওষুধ কোম্পানির প্রতিনিধি শহিদুল ইসলাম মৃধার ঔষধ লেখা সংক্রান্ত ঝামেলার জের ধরে ৩১ ডিসেম্বর বুধবার রাতে ডামুড্যা বাজারের আলী আজম জেনারেল হাসপাতাল এলাকায় নুসরাত তারিন তন্বী, তার স্বামী বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ভাস্কুলার সার্জন মঞ্জুরুল ইসলাম ভূঁইয়া ও মাসুমা খাতুনের উপর হামলার অভিযোগ উঠে উপজেলা আওয়ামী লীগের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক জুলহাস মাদবর ও ল্যাবএইড ফার্মাসিউটিক্যালস ঔষধ কোম্পানির মেডিক্যাল প্রোমোশন অফিসার শহিদুল ইসলাম ও আওয়ামী লীগ নেতা জুলহাস মাদবরের ছেলে আব্দুর রাজ্জাক কলেজ ছাত্রলীগের সহ-সভাপতি ছাত্র তামজিদ মাহমুদ লিখন মাদবরের বিরুদ্ধে।

এ ঘটনায় পরদিন বৃহস্পতিবার মামলা হলে আওয়ামী লীগ নেতা জুলহাস মাদবর ও শহিদুল ইসলামকে গ্রেফতার করে পুলিশ। এদের মধ্যে আওয়ামী লীগ নেতা জুলহাস মাদবর বর্তমানে জামিনে মুক্ত আছেন। তবে এখনো পলাতক আছে তাঁর ছেলে তামজিদ মাহমুদ লিখন মাদবর।

মানববন্ধনে নুসরাত তারিন তন্বীর চাচাতো ভাই মেহেদী হাসান জিহাদ বলেন, একজন চিকিৎসক তার এলাকার মানুষের চিকিৎসা সেবা দিতে গ্রামের হাসপাতালেই চাকুরী নিয়েছেন। তার উপরে এমন হামলা নিন্দাজনক। যারা এ ঘটনা ঘটিয়েছেন তাদের আমরা সর্বোচ্চ বিচারের দাবী জানাই। পাশাপাশি যে আসামী এখনো পলাতক রয়েছে তাকে দ্রুত সময়ের মধ্যে গ্রেপ্তারের দাবী জানাই।

শিধলকুড়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান খলিলুর রহমান হায়ৈকার বলেন, তন্বী আমাদের এলাকার সন্তান। ওকে নিয়ে আমরা গর্ব করি। তন্বীর স্বামীও একজন চিকিৎসক। তাদের উপর যে হামলা চালানো হয়েছে তা অত্যন্ত নিন্দাজনক। অপরাধী যেই হোক না কেন, তার যেন আইনের মাধ্যমে সর্বোচ্চ সাজা হয়।

ডামুড্যা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এমারত হোসেন বলেন, চিকিৎসকের ওপর হামলার ঘটনার মামলায় দুজন আসামিকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। একজন আসামী পলাতক আছে। তাকে ধরতে পুলিশ মাঠে কাজ করছে। দ্রুত তাকেও আইনের আওতায় আনা হবে।

সর্বশেষ - খেলাধুলা