শনিবার , ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২৩ | ৯ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন-আদালত
  3. ক্যারিয়ার
  4. খেলাধুলা
  5. জাতীয়
  6. তরুণ উদ্যোক্তা
  7. ধর্ম
  8. নারী ও শিশু
  9. প্রবাস সংবাদ
  10. প্রযুক্তি
  11. প্রেস বিজ্ঞপ্তি
  12. বহি বিশ্ব
  13. বাংলাদেশ
  14. বিনোদন
  15. মতামত

প্রশাসনিক আদেশে খালেদাকে বিদেশ নেয়া যায়: ভয়েস অব আমেরিকাকে ফখরুল

প্রতিবেদক
bdnewstimes
সেপ্টেম্বর ৩০, ২০২৩ ৯:৫৮ অপরাহ্ণ


সারাবাংলা ডেস্ক

ঢাকা: খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশ নেওয়া প্রসঙ্গে বিএনপি‘র মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ভয়েস অব আমেরিকাকে বলেছেন, ‘সরকার ইচ্ছা করলে প্রশাসনিক আদেশেই খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে নেওয়ার ব্যবস্থা করতে পারে।’

তিনি বলেন, ‘সরকার যে আদেশে বেগম খালেদা জিয়ার সাজা স্থগিত করেছেন। সেখানে দুইটি শর্ত জুড়ে দিয়েছে। তার একটি শর্ত হলো বিদেশে যাওয়া যাবে না। এই শর্তটি তুলে দিলেই খালেদা জিয়া বিদেশে গিয়ে চিকিৎসা করে আবার দেশে আসতে পারবেন। শনিবার (৩০ সেপ্টেম্বর) বিকেলে ভয়েস অব আমেরিকাকে বিএনপি‘র মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর এসব কথা বলেন।

খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসা প্রসঙ্গে

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ভয়েস অব আমেরিকাকে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে বলেছিলেন, খালেদা জিয়া চিকিৎসার জন্য বিদেশ যেতে হলে তাকে আগে আদালতে আত্নসমর্পণ করে জেলে যেতে হবে। এর বাইরে আইনগত কোনো সুযোগ আছে কিনা এ বিষয়ে জানতে চাইলে বিএনপি‘র মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ভয়েস অব আমেরিকাকে বলেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর এই কথাটি সঠিক নয়। কারণ যে আদেশে সরকার বেগম খালেদা জিয়ার সাজা মাপ না করে স্থগিত করেছেন। সেখানে দুইটি শর্ত জুড়ে দিয়েছে। তার একটি শর্ত হলো বিদেশে যাওয়া যাবে না। এই শর্তটি তুলে দিলেই খালেদা জিয়া বিদেশে গিয়ে চিকিৎসা করে আবার দেশে আসতে পারবেন।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘সরকার মূলত একটা রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে একটি মামলা তৈরি করেছেন। তৈরি করা এই মামলায় সাজাটাও দিয়েছেন ফরমায়েশি সাজা। পাঁচ বছরের সাজাকে দশ বছর করা হয়েছে। তারপর থেকে তাকে কারাগারে নেওয়া হয়েছে। এখন তো তিনি অসুস্থ, এতো অসুস্থ যে পরিবার থেকে বেগম জিয়াকে বিদেশে নেওয়ার জন্য বারবার বলা হচ্ছে। কিন্তু সরকার যদি তাকে চিকিৎসা নেওয়ার জন্য বিদেশ যাওয়ার আগে তাকে আবার কারাগারে নেওয়ার কথা বলে তাহলে এটি পরিষ্কার হয়ে যাবে, যে রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে এই পদক্ষেপ নিতে যাচ্ছে। এটি তাদের সদিচ্চার ওপর নির্ভর করে। সরকার ইচ্ছা করলে প্রশাসনিক আদেশেই খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশে নেওয়ার ব্যবস্থা করতে পারেন।’

ভয়েস অব আমেরিকা সাক্ষাৎকারে বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে উন্নততর চিকিৎসার জন্য বিদেশে পাঠানোর বিষয়টি পুনর্বিবেচনা করা হবে কিনা এই প্রশ্নের জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, ‘তবে হ্যাঁ, যেটুকু করতে পেরেছি তার জন্য সেটি হচ্ছে, আমার যেটুকু সরকার হিসেবে ক্ষমতা আছে, সেটি আমি তার সাজাটা স্থগিত করে তাকে বাড়িতে থাকার পারমিশন এবং তার চিকিৎসা ব্যবস্থা করা হয়েছে। সে নিজেই চিকিৎসা নিচ্ছে এখন। বাংলাদেশের সব থেকে দামি হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন। আর যদি তাদের যেতে হয় বাইরে, এই এখন যে তাকে আমি বাসায় থাকার পারমিশনটা দিয়েছি; এটি আমাকে উইথড্র করতে হবে। তাকে আবার জেলে যেতে হবে এবং কোর্টে যেতে হবে। কোর্টের কাছে আবেদন করতে হবে। কোর্ট যদি রায় দেয়, তখন যেতে পারবে। এটি হলো বাস্তবতা।’

বিএনপি‘র নেতাদের মামলা প্রসঙ্গে

ভয়েস অব আমেরিকাকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে বিরোধীদলের বিরুদ্ধে লাখ লাখ মামলা প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দাবি করেন, সন্ত্রাসী বোমাবাজি আগুন পুড়িয়ে মানুষ হত্যার কারণে বিএনপি’র নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা হয়েছে। এ বিষয় জানতে চাইলে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ভয়েস অব আমেরিকাকে গত প্রায় ১৫ বছর আওয়ামী সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকে অত্যন্ত পরিকল্পিতভাবে বিরোধী দলকে রাজনীতি থেকে সরানোর জন্য বিভিন্ন রকম কৌশল অবলম্বন করেছেন বলে অভিযোগ করেন।

তিনি বলেন, ‘তার মধ্যে একটি হচ্ছে মিথ্যা মামলা দেয়া, গায়েবি মামলা দেওয়া এবং মামলাগুলোতে প্রথমে বিএনপি‘র নেতাকর্মীদের কিছু নাম দিয়ে দেওয়া। সে সঙ্গে অজ্ঞাতনামা জুড়ে দেওয়া। এইভাবে তারা একটি সুযোগ নিয়ে ১৪০০/১৫০০ লোককে একসঙ্গে একটি মামলায় আসামি করে দিচ্ছে। এরইমধ্যে বিএনপি‘র নেতাকর্মীদের নামে মামলার সংখ্যা দাঁড়িয়েছে দেড় লাখের ওপরে। এসব মামলায় অভিযুক্ত আসামির সংখ্যা প্রায় ৪৫ লাখ। একটা গণতান্ত্রিক ব্যবস্থাতে, একটি গণতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল, যারা নির্বাচন করে, গণতন্ত্র চর্চা করে, তাদের ৪৫ লাখ লোকের বিরুদ্ধে যদি মিথ্যা মামলা থাকে, গায়েবি মামলা থাকে। তাহলে ওই মামলার জন্য তো নিযমিত কোর্টে হাজিরা দিতে হয়। তাহলে রাজনীতির কী অবস্থা হয়েছে, রাজনীতি কোন জায়গায় গিয়ে পৌছেঁছে সেটি বুঝতেই পারেন।”

বিএনপি মহাসচিব আরও বলেন, ‘মামলা দেওয়ার সময় যে সমস্ত কথাগুলো ওরা বলছে, আসলে এই সব ঘটনাতো সরকারই ঘটিয়েছে। তারা দলীয় লোকজন এবং বিভিন্ন এজেন্সীর লোকজন দিয়ে ঘটনা ঘটিয়ে এসব মামলা দিয়েছেন। আবার কতগুলো জায়গায়, এই ধরনের কোনো ঘটনাও ঘটেনি, তারপরেও তারা মামলা তৈরি করে দিয়েছে। সুতরাং এইসব কথা বলে লাভ নেই। গত ১৫ বছর ধরে এই অনির্বাচিত সরকার বাংলাদেশের গণতন্ত্রকে ধবংস করার জন্য যত রকমের অপকৌশল আছে, তারা সেই অপকৌশল নিচ্ছে। ফলে আজকে লাখ লাখ মানুষ সাফার করছে। তাদেরকে মিথ্যা মামলা দিয়ে হয়রানি করছে। প্রধানমন্ত্রী যেভাবেই বলুক এই দেশের মানুষ কেন সারা পৃথিবীর মানুষ তা মেনে নিচ্ছে না।’

বিএনপি‘র নেতাকর্মীদের গুম প্রসঙ্গে

বাংলাদেশে গুম প্রসঙ্গে শেখ হাসিনার সাক্ষাৎকারে দেওয়া বক্তব্যের দৃষ্টি আর্কষণ করলে মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর ভয়েস অফ আমেরিকাকে বলেন, ‘এখানে গুম হয়েছে, গুম হওয়ার প্রমাণ আছে এবং সরকারও অনেক ক্ষেত্রে বলতে বাধ্য হয়েছে। আমাদের স্থায়ী কমিটির সদস্য সালাউদ্দিন আহমেদকে গুম করে ভারতে জেলে দেওয়া হয়েছে। এখনও তিনি সেখানে আছেন। আমাদের ইলিয়াস আলীকে গুম করা হয়েছে, এটি কি প্রধানমন্ত্রী অস্বীকার করতে পারবেন, যে ইলিয়াস আলী গুম হয়নি। বিভিন্ন মানবাধিকার সংস্থাগুলোর তদন্তে গুম হওয়ার বিষয়টি উঠে এসেছে।’

গুম হওয়া ব্যক্তিদের ব্যাপারে জাতিসংঘ কেন তদন্ত করছে না প্রধানমন্ত্রীর এমন মন্তব্যের জবাবে বিএনপি‘র মহাসচিব ভয়েস অব আমেরিকাকে বলেন, ‘আমরা নিজেরা তদন্ত করেছি, তদন্ত করেই বলেছি। ওনারা কেন তদন্ত করছেন না। সরকারের দায়িত্ব গুমের তদন্ত করা। ওনারা কি জন্য সরকারে আছেন। ওনারা কেন তদন্ত করে কোনো কিছু করছেন না। আমরা তো বারবার বলছি গুম হয়েছে।’

মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর আরও বলেন, ‘র‌্যাব একটা বাহিনী। তাদেরকে মার্কিন সরকার নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে। এরইমধ্যে তাদের অফিসারদেরকেও স্যাংশন দিয়েছে। র‌্যাব যে গুম, গণহত্যা, বিচারবর্হিভূত হত্যাকাণ্ড সচরাচর যেগুলো করেছে তার সব কিছুই সামনে চলে এসেছে। সুতরাং ওইসব কথা বলে লাভ নেই। তারা একদলীয় শাসন ব্যবস্থাকে প্রতিষ্ঠা করার জন্য তারা এই সব কাজগুলো করছে। সরকার বিরোধীদলবিহীন একটা রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা করতে চায়।’

সারাবাংলা/একে





Source link

সর্বশেষ - খেলাধুলা