মঙ্গলবার , ২৯ আগস্ট ২০২৩ | ৭ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন-আদালত
  3. ক্যারিয়ার
  4. খেলাধুলা
  5. জাতীয়
  6. তরুণ উদ্যোক্তা
  7. ধর্ম
  8. নারী ও শিশু
  9. প্রবাস সংবাদ
  10. প্রযুক্তি
  11. প্রেস বিজ্ঞপ্তি
  12. বহি বিশ্ব
  13. বাংলাদেশ
  14. বিনোদন
  15. মতামত

জামালপুরে আ.লীগের নেতার ওপর হামলা,ছাত্রদল নেতা আটক

প্রতিবেদক
bdnewstimes
আগস্ট ২৯, ২০২৩ ৯:০৯ পূর্বাহ্ণ

সাকিব আল হাসান নাহিদ, জামালপুর।

জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের এক নেতার ওপর হামলা ও মারধরের করেছে ছাত্রদলে একদল সন্ত্রাসী। এ ঘটনায় সাথে জড়িত থাকার অভিযোগে এক ছাত্রদল নেতাকে আটক করেছে পুলিশ। সোমবার (২৮ আগস্ট) সন্ধ্যার দিকে জামালপুর শহরের কালিঘাট এলাকার বাইপাস সড়কে এ ঘটনা ঘটে।

আহত আওয়ামী লীগ নেতার নাম জিএসএম মিজানুর রহমান। তিনি জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি। ছাত্রদলের কয়েক জনের হাতে মারধর শিকার হয়ে জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে বাড়ি ফিরে গেছেন তিনি।

আটককৃত যুবক মো. আরিফুল হাসান ওরফে মুক্তা (৩৫)জামালপুর শহরের মিয়াপাড়া এলাকার মৃত আনসার আলীর ছেলে। সে জামালপুর শহর ছাত্রদলের সাবেক সাধারণ সম্পাদক।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, আরিফুল ইসলাম মুক্তাসহ তার সাঙ্গপাঙ্গরা দীর্ঘদিন ধরেই শহরের বাইপাস সড়কে ভূয়া ট্রাফিক পুলিশ সেজে মোটরসাইকেল আরোহীদের থামিয়ে কাগজপত্র দেখে টাকা আদায় করতো। আজ বিকালে শহরের বাইপাস সড়কে আওয়ামী লীগের নেতা জিএসএম মিজানুর রহমান হাঁটতে বের হন। এ সময় তিনি শহরের কালিঘাট এলাকায় দেখে ৩/৪ জন যুবক একজন মোটরসাইকেল আরহীকে আটকিয়ে মারধর করার চেষ্টা করছিল। এ সময় ওই নেতা ওইসব যুবকদের কাছ আরোহীকে মারধরের কারণ জানতে চান। এক পর্যায়ে যুবকদের কথা মতো মোটরসাইকেলের কাগজপত্র দেখেন। কাগজপত্র ঠিক থাকায় ওই মোটর সাইকেল আরোহীকে ছাড়িয়ে নেওয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু ওই যুবকরা ওই নেতার সঙ্গে তর্কে জড়িয়ে পড়েন। স্থানীয় লোকজনের অনুরোধে ওই নেতা সেখান থেকে আবারও হাঁটতে চলে যান। পরে সন্ধ্যার দিকে ফেরার পথে ওই এলাকায় পরিকল্পিতভাবে ওই নেতার ওপর তারা হামলা চালিয়ে ব্যাপক মারধর করে ।
স্থানীয় লোকজন গুরুতর আহত অবস্থায় তাঁকে উদ্ধার করে জামালপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করেন। খবর পেয়ে সদর থানার পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে ছাত্রদল নেতা আরিফুর রহমান মুক্তাকে আটক করে।

জামালপুর সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) কাজী শাহনেওয়াজ মুঠোফোনে বলেন, মাহমুদপুর এলাকার একজন মোটরসাইকেল আরোহীকে আটকিয়ে একদল বখাটে মারধরের চেষ্টা করছিল। এ সময় ওনি (আওয়ামী লীগ নেতা) ওই মোটরসাইকেল আরোহীকে রক্ষা করতে যান। এ সময় ওই নেতার সঙ্গে কয়েকজন বখাটেরা তর্ক শুরু করেন। পরে স্থানীয় লোকজন ওই নেতাকে সেখান থেকে সরিয়ে দেন। ফেরার পথে পরিকল্পিতভাবে ওই বখাটেরা তাঁর (আওয়ামী লীগ নেতা) ওপর হামলা চালায়। এ ঘটনায় একজনকে আটক করা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে আরও তদন্ত করা হচ্ছে। বাকীদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা করা হচ্ছে। প্রাথমিকভাবে জানা গেছে, হামলার ঘটনায় যাঁরা ছিলেন তাঁরা ছাত্রদলের নেতাকর্মী। এ ঘটনায় থানায় মামলা দায়ের প্রস্তুতি চলছে।’

এ ব্যাপারে জিএসএম মিজানুর রহমানের মুঠোফোনে কল দেওয়া হলে তাঁর ফোনটি বন্ধ পাওয়া যায়।

সর্বশেষ - খেলাধুলা