সোমবার , ২১ আগস্ট ২০২৩ | ১০ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন-আদালত
  3. ক্যারিয়ার
  4. খেলাধুলা
  5. জাতীয়
  6. তরুণ উদ্যোক্তা
  7. ধর্ম
  8. নারী ও শিশু
  9. প্রবাস সংবাদ
  10. প্রযুক্তি
  11. প্রেস বিজ্ঞপ্তি
  12. বহি বিশ্ব
  13. বাংলাদেশ
  14. বিনোদন
  15. মতামত

ন্যায়বিচার হয়েছে, তারা উপযুক্ত শাস্তি পেয়েছে: ফুলপরী

প্রতিবেদক
bdnewstimes
আগস্ট ২১, ২০২৩ ৯:০০ অপরাহ্ণ


ইবি করেসপন্ডেন্ট

কুষ্টিয়া: ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) আলোচিত ছাত্রী নির্যাতনের ঘটনায় অবশেষে শাখা ছাত্রলীগের বহিষ্কৃত ছাত্রলীগ নেত্রী সানজিদা চৌধুরী অন্তরাসহ জড়িত পাঁচ ছাত্রীকে স্থায়ী বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত হয়েছে। এ সিদ্ধান্তে সন্তোষ প্রকাশ করেছেন ভুক্তভোগী ছাত্রী ফুলপরী।

সোমবার (২১ আগস্ট) সন্ধ্যায় ফুলপরী বলেন, ‘বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন যে সিদ্ধান্ত নিয়েছে তাতে আমি সন্তুষ্ট। অন্যায়ের ন্যায়বিচার হয়েছে। তারা আমার সঙ্গে যে নির্যাতন করেছে তার উপযুক্ত শাস্তি পেয়েছে। এ বিচার একটা দৃষ্টান্ত হিসেবে থাকবে। একইসঙ্গে আমি বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে সর্বোচ্চ নিরাপত্তা চাই।’

এর আগে বিকেল ৪টার দিকে উপাচার্যের বাসভবনে অনুষ্ঠিত ২৬০ তম জরুরি সিন্ডিকেট সভায় পাঁচ ছাত্রীকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত হয়।

আরও পড়ুন- ইবিতে নির্যাতন: ছাত্রলীগ নেত্রীসহ ৫ শিক্ষার্থী স্থায়ী বহিষ্কার

সভা শেষে বিকেল সোয়া পাঁচটার দিকে বিষয়টি নিশ্চিত করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার (ভারপ্রাপ্ত) এইচ এম আলী হাসান। তিনি জানান, সুপ্রিম কোর্টের হাইকোর্ট ডিভিশনের নির্দেশনা অনুযায়ী তাদের আজীবন বহিষ্কারের সিদ্ধান্ত হয়েছে। এই সিদ্ধান্ত আগামী ২৩ আগস্টের মধ্যে হাইকোর্টে পাঠানো হবে।

বহিষ্কৃত চারজন হলেন ফিন্যান্স ও ব্যাংকিং বিভাগের তাবাসসুম ইসলাম ও মোয়াবিয়া জাহান, আইন বিভাগের ইসরাত জাহান মীম এবং চারুকলা বিভাগের হালিমা খাতুন উর্মি। তারা সবাই ২০২০-২১ শিক্ষাবর্ষের শিক্ষার্থী।

এর আগে গত ১১ ও ১২ ফেব্রুয়ারি ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের দেশরত্ন শেখ হাসিনা হলে গণরুমে এক নবীন ছাত্রীকে রাতভর নির্যাতন ও বিবস্ত্র করে ভিডিওধারণের অভিযোগ ওঠে। এ ঘটনায় গত ১৪ ফেব্রুয়ারি ভুক্তভোগী প্রক্টর, ছাত্র উপদেষ্টা ও হল প্রভোস্ট বরাবর লিখিত অভিযোগ দেন ভুক্তভোগী। এ নিয়ে হল, বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসন ও হাইকোর্টেও নির্দেশে কুষ্টিয়া জেলা প্রশাসন এবং শাখা ছাত্রলীগ কর্তৃক পৃথক চারটি তদন্ত কমিটি গঠিত হয়। তদন্ত শেষে প্রতিবেদনের আলোকে ঘটনার সত্যতা প্রমাণিত হলে হাইকোর্টের নির্দেশে গত ৪ মার্চ ছাত্র শৃঙ্খলা কমিটির সভায় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ওই পাঁচ অভিযুক্তকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়। এছাড়া হল প্রশাসন ও ছাত্রলীগ তাদের তদন্তের ভিত্তিতে অভিযুক্তদের বহিষ্কার করে।

পরে গত ১৫ জুলাই ছাত্র-শৃঙ্খলা কমিটির সভায় অভিযুক্ত পাঁচজনকে চূড়ান্তভাবে এক বছরের জন্য বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বহিষ্কার করে কর্তৃপক্ষ। বিশ্ববিদ্যালয়ের স্টুডেন্টস কোড অব কন্ডাক্ট, ১৯৮৭ এর অধ্যায় ২ ধারা ৮ অনুযায়ী অভিযুক্তদের এক বছরের জন্য বহিষ্কার করা হয়। এসময় এটিই বিশ্ববিদ্যালয়ের সর্বোচ্চ শাস্তি বলে জানায় কর্তৃপক্ষ। তবে এই শাস্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের আইন অনুযায়ী বিধি সম্মত হয়নি বলে মন্তব্য করে সিদ্ধান্তকে স্থগিত করেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে বিশ্ববিদ্যালয়ের কোড অব কন্ডাক্টের প্রথম ভাগের ৪, ৫, ৭ ও দ্বিতীয় ভাগের ২ (৮) ধারায় সাজা দিয়ে উপাচার্যকে আগামী ২৩ আগস্ট প্রতিবেদন দাখিলেরও নির্দেশ দেন আদালত।

গত ২৬ জুলাই বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি রাজিক আল জলিলের হাইকোর্ট বেঞ্চ এ নির্দেশ দেন। এরই প্রেক্ষিতে রোববার (২০ আগস্ট) বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র শৃঙ্খলা কমিটির মিটিং অনুষ্ঠিত হয়। মিটিংয়ে এই বিষয়টির সিদ্ধান্তের জন্য সিন্ডেকেট সভায় পাঠানো হয়। সেই লক্ষ্যে সোমবার জরুরি সিন্ডেকেট অনুষ্ঠিত হয় এবং অভিযুক্তদের স্থায়ী বহিষ্কার করা হয়।

সারাবাংলা/একে





Source link

সর্বশেষ - খেলাধুলা