বুধবার , ১০ জুলাই ২০২৪ | ১০ই শ্রাবণ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
  1. অর্থনীতি
  2. আইন-আদালত
  3. ক্যারিয়ার
  4. খেলাধুলা
  5. জাতীয়
  6. তরুণ উদ্যোক্তা
  7. ধর্ম
  8. নারী ও শিশু
  9. প্রবাস সংবাদ
  10. প্রযুক্তি
  11. প্রেস বিজ্ঞপ্তি
  12. বহি বিশ্ব
  13. বাংলাদেশ
  14. বিনোদন
  15. মতামত

৫ ঘণ্টা পর মহাসড়ক ছাড়লেন ইবি শিক্ষার্থীরা

প্রতিবেদক
bdnewstimes
জুলাই ১০, ২০২৪ ৭:০৮ অপরাহ্ণ


ইবি করেসপন্ডেন্ট

ইবি: দীর্ঘ পাঁচ ঘণ্টা পর কুষ্টিয়া-খুলনা মহাসড়ক ছাড়লেন ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়ের (ইবি) শিক্ষার্থীরা। বুধবার (১০ জুলাই) বিকেল ৪টার দিকে অবরোধ তুলে নেন তারা। এর আগে কোটা সংস্কারের দাবিতে দেশব্যাপী চলমান ‘বাংলা ব্লকেড’ এর অংশ হিসেবে সকাল ১১টায় কুষ্টিয়া-খুলনা মহাসড়ক অবরোধ করেন।

এর আগে বিশ্ববিদ্যালয়ের বটতলা প্রাঙ্গণ থেকে বিক্ষোভ মিছিল বের করে শিক্ষার্থীরা। মিছিলটি ক্যাম্পাসের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে মহাসড়কে অবস্থান নেয়।

অবরোধ চলাকালে বিভিন্ন প্রতিবাদী কবিতা, গান, গীতিনাট্য ও অভিনয়ের মাধ্যমে বৈষম্যমূলক কোটা ব্যবস্থা সংস্কারের দাবি জানান শিক্ষার্থীরা। এছাড়া মহাসড়কে ফুটবল, ক্রিকেট, লুডু ও দাবা খেলার আসর বসায় আন্দোলনরত শিক্ষার্থীরা।

বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রধান ফটক সংলগ্ন মহাসড়কের উভয় পার্শ্বে গাছের গুঁড়ি ফেলে যান চলাচল বন্ধ রাখায় কুষ্টিয়া ও ঝিনাইদহ অভিমুখে তীব্র জানজট সৃষ্টি হয়। এতে ভোগান্তিতে পড়েন যাত্রী ও গাড়ি চালকরা। তবে জরুরিভিত্তিক অ্যাম্বুলেন্স, লাশবাহী গাড়ি ছেড়ে দিতে যেখা যায় শিক্ষার্থীদের। এদিকে জানজটে বসে থাকা অনেক যাত্রী ও চালক এই আন্দোলনে একাত্মতা পোষণ করেছেন।

এসময় শিক্ষার্থীদের ‘আমি পূর্ব বাংলা ও পশ্চিম পাকিস্তানের বৈষম্য দেখিনি, কিন্তু আমি কোটার ভয়াবহতা দেখেছি’ ‘পোষ্য কোটা কীভাবে হয়, মানুষ কীভাবে পোষ্য হয়?’ ‘বাংলা ব্লকেড সফল করো’ ‘৫৬% কোটা ৪৪% প্রশ্নফাঁস, মেধাবীরা অটো বাদ’, ‘আমরা পড়ার টেবিলে বসতে চাই, রাস্তায় নয়’, ঘুণে ধরা শিক্ষা ব্যবস্থা সংস্কারের কাজ চলছে, সাময়িক অসুবিধার জন্য দুঃখিত’ সহ বিভিন্ন ফেস্টুন দেখা যায়।

শিক্ষার্থীদের বর্তমানে একটাই দাবি, সব গ্রেডে অযৌক্তিক ও বৈষম্যমূলক কোটা বাতিল করে সংবিধানে উল্লিখিত অনগ্রসর গোষ্ঠীর জন্য কোটাকে ন্যুনতম পর্যায়ে এনে সংসদে আইন পাস করতে হবে।

আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীরা বলেন, আমরা কোটা ব্যবস্থার সুষ্ঠু সংস্কার চাই। নতুন পরিপত্র জারি করে অনতিবিলম্বে বৈষম্যমূলক এই কোটা পদ্ধতির সংস্কার করতে হবে। সব চাকরিতে কোটা পদ্ধতির নিয়োগ বন্ধ করে মেধার ভিত্তিতে নিয়োগ দিতে হবে। চাকরির সব গ্রেড মিলিয়ে ৫% কোটা রাখতে হবে।

সারাবাংলা/এনইউ





Source link

সর্বশেষ - খেলাধুলা